নরওয়েতে উচ্চশিক্ষার খুঁটিনাটি

উচ্চশিক্ষার জন্য বিদেশ যেতে চায়, অথচ নরওয়ে সম্পর্কে জানেনা এমন ব্যাক্তি খুঁজে পাওয়া দুষ্কর। ইউরোপের এই দেশটিও বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে উচ্চশিক্ষার গন্তব্য হিসেবে, কেননা এখানে বেশিরভাগ বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতেই নেই কোনো টিউশন ফি। উত্তর ইউরোপের এই দেশটি অনেকের কাছেই আবার নিশীথ সূর্যের দেশ হিসেবে বেশ পরিচিত। বলে রাখা ভালো এই দেশটির রাজধানী অসলো এবং যার ভাষা হচ্ছে নরওয়েজীয় বা নরওয়েজিয়ান। এই দেশটিতে প্রায় সাড়ে ৫৪ লক্ষ মানুষের বসবাস। কিন্তু মজার বিষয় হচ্ছে এইখানে প্রতি বর্গ কিলোমিটারে মাত্র ১৭ জন লোক বসবাস করে। নরওয়েতে উচ্চশিক্ষা নিয়ে অনেকেই বেশ আগ্রহী তাই আজকের অলোচনা নরওয়েতে উচ্চশিক্ষা নিয়ে।

নরওয়েতে উচ্চশিক্ষার জন্য কেন যাবেন?

  • শান্তিপূর্ণ দেশ!
  • টিউশন ফি নেই (কিছু কিছু বিশ্ববিদ্যালয়ে আছে)
  • স্থায়ী হবার সুযোগ
  • পার্ট টাইম চাকরির সুবিধা
  • বিশ্বমানের শিক্ষাব্যাবস্থা
  • ইংরেজিতে পড়ার সুযোগ

বলে রাখা ভালো, এই দেশটি খুবই শান্তিপ্রিয় দেশ, যারা আমার মত শান্তিপ্রিয় মানুষ তারা অবশ্যই নরয়েকে পছন্দের তালিকায় রাখতে পারেন। নরওয়েতে পড়াশোনার জন্য বেশ অনেকগুলি ইউনিভার্সিটি রয়েছে।

যেসকল বিষয়ে পড়তে যেতে পারবেন?

  • Civil Engineering
  • Urban Ecological Planning
  • Theology, Religion and Society
  • System Engineering
  • Sustainable Energy
  • Sustainable Architecture
  • Strategy and Management
  • Statistics
  • Renewable Energy
  • Public Administration
  • psychology
  • physics
  • Petroleum Engineering
  • Northern Studies
  • Neuroscience
  • Molecular Science
  • Media Studies
  • Mechatronics
  • Mathematics
  • Finance
  • Marine Technology
  • Law
  • Logistics
  • Information and Communication Technology
  • Industrial Engineering
  • Aerospace Control Engineering
  • Animal Science
  • Applied Computer Science
  • Applied Economics
  • Aquaculture
  • Biology
  • Biosciences
  • Business Administration
  • Chemistry
  • Data Science
  • Electrical and Power Technology
  • English
  • Environmental Engineering
  • Fluid Mechanics
  • Health Economy and Management

বলে রাখি, এছাড়াও নরওয়েতে পড়াশোনার জন্য প্রায় ৩২০টির চেয়েও বেশি কোর্স আছে। মাস্টার্সের জন্য প্রায় ৩০০টি কোর্স আছে। এইখান থেকে আপনি আপনার সাবজেক্ট রিলেটেড কোর্স আছে কিনা জানতে ভিজিট করুন

আবেদন করতে কি কি যোগ্যতা থাকা লাগে?

যেহেতু নরওয়েতে ব্যাচলের জন্য বাংলাদেশ থেকে ভিসা দেওয়া হয়না এবং সাবজেক্টও বেশ কম। সেহেতু আমরা কথা বলব মাস্টার্স নিয়ে। মাস্টার্সে বেশ অনেকগুলো বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে, যারা বেশ অনেকগুলি কোর্স অফার করে থাকে। নরওয়েতে উচ্চশিক্ষার জন্য আপনি যেই বিষয়েই পড়তে চান না কোন কোন কোর্স খুঁজে পেয়ে যাবেন। আপনার রিলেটেড কোর্স খুঁজে পাবেন এখানে-

যেহেতু নরওয়েতে ব্যাচলের জন্য বাংলাদেশ থেকে ভিসা দেওয়া হয়না এবং সাবজেক্টও বেশ কম। সেহেতু আমরা কথা বলব মাস্টার্স নিয়ে। মাস্টার্সে বেশ অনেকগুলো বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে, যারা বেশ অনেকগুলি কোর্স অফার করে থাকে। নরওয়েতে উচ্চশিক্ষার জন্য আপনি যেই বিষয়েই পড়তে চান না কোন কোন কোর্স খুঁজে পেয়ে যাবেন। আপনার রিলেটেড কোর্স খুঁজে পাবেন এখানে-

➡ পাসপোর্ট

➡ আইএলটিএস দক্ষতা (৬.৫)

➡ জি আর ই/ জিমেট (কিছু কিছু কোর্সের জন্য চেয়ে থাকে)

➡ একাডেমিক সার্টিফিকেট

➡ একাডেমিক ট্রান্সক্রিপ্ট

➡ রিকমেন্ডেশন লেটার (২টি)

➡ মোটিভেশন লেটার

➡ ব্যাংক স্টেটমেন্ট (প্রায় ১২ লক্ষ টাকা)

নরওয়েতে কোনো টিউশন ফি নেই, তবে সেমিস্টার ফি রয়েছে যা বাংলাদেশি টাকায় ৫/৬ হাজারের মত। আবেদনের কোন ফি নেই, আপনি চাইলে একাধিক কোর্সে আবেদন করতে পারবেন। আবেদনের নির্দিষ্ট কোনো সময়সীমা নেই, কারণ একেক বিশ্ববিদ্যালয়ের আবেদনের সময় একেক রকম। তবে সাধারনত সেপ্টেম্বর থেকে ডিসেম্বরের মধ্যে আবেদন করতে হয়। যা এর পরের বছরের মাঝামাঝিতে ক্লাস শুরু হয়। আবদেন করতে এবং সকল প্রকার তথ্য খুঁজে পেতে ভিজিট করুন- https://www.studyinnorway.no/

লিভিং এক্সপেন্স বাবদ কত টাকা আয়/ব্যয় হয়ে থাকে?

ভিং এক্সপেন্স নিয়ে এতটা ভাবার দরকার নেই, যদি আপনি নরওয়েজিয়ান ভাষা জেনে থাকেন। তবে যারা আগে থেকেই প্ল্যানিং করেছেন নরওয়েতে পড়তে যাবেন, তারা দয়া করে বেসিক হলে নরওয়েজিয়ান ভাষা শিখে যাবেন। ভাষা জানা থাকলে পার্ট টাইম জব পেতে কোনো সমস্যা হবে না আশা করছি। আর এমনিতেই ইন্টারন্যাশনাল ছাত্র হিসেবে আপনি সপ্তাহে ২০ ঘন্টা কাজের সুযোগ পাবেন। আপনি যদি ১৫/১৬ ঘন্টাও কাজ করেন তবে ৬০০০ / ৭০০০ NOK আয় করতে পারবেন। যা বাংলাদেশি টাকায় প্রায় ৬০/৭০ হাজার টাকা। (কেউ কেউ এর বেশিও আয় করে থাকেন)। মজার কথা হচ্ছে যেই টাকাটা আপনি ব্লক করবেন (প্রায় ১২ লক্ষ টাকা)। সেটা আপনি নরওয়ে গিয়েই তুলতে পারবেন এবং চাইলে দেশেও পাঠাতে পারবেন। চাকরি পেয়ে গেলে এই টাকা খরচ করা লাগেনা, তবে চাকরি পেতে ৩/৪ সময় লেগে যায় অনেক ক্ষেত্রে।

এবার আসি কত টাকা লাগে থাকা খাওয়া এবং অন্যান্য খরচ বাবদ! কেউ এক্সাক্ট উত্তর দিতে পেরেছে এটা আমার জানা নেই, সবাই চেষ্টা করে একটা ধারনা দিতে। তবে সাধরনত সবকিছু মিলিয়ে ৫ হাজার NOK যা বাংলাদেশি টাকায় ৫০ হাজার টাকাতেই আপনার হয়ে যাবে।

বরাবরের মতই বড় শহরগুলোতে জব পাওয়ার সম্ভবনা বেশি। তাই সবসময় চেষ্টা করবেন বড় শহরে যেতে। তবে ভাষা জানা থাকলে ছোট-বড় সব শহরেই পার্ট টাইম চাকরি পাওয়া যায়।

স্থায়ী বসবাসের সুযোগ-সুবিধা কেমন?

আপনার পড়াশোনা শেষে জব খোঁজার জন্য আপনাকে ভিসা দেওয়া হবে এবং ঐ সময়ের মধ্যে আপনাকে জব খুঁজতে হবে। পড়াশোনা শেষে জব না পেয়ে ফিরে এসেছে এমনটা খুবই কম। আপনার যদি একাডেমিক রেজাল্ট এবং সফট স্কিল ভালো হয়ে থাকে তবে অবশ্যই চাকরি একটা পেয়ে যাবেন। সাধারনত তিন বছর পরে “পি আর” এর জন্য আবেদন করা যায়,এবং যারা পিএইচডি করবেন তারাও আবেদন করতে পারবেন। কেননা নরওয়েতে পিএইচডিকেও জব হিসেবে ধরা হয়। তাহলে সারকথা হচ্ছে আপনি যদি ২ বছরের মাস্টার্স করেন এবং ১ বছরের মধ্যে একটা জব/ অথবা পিএইচডি ব্যাবস্থা করতে পারেন, তাহলে আপনি পি আর এর জন্য আবেদন করতে পারবেন।

লিখেছেন : নাজমুল হাসান

আমার আরও লেখাসমূহ…

বাড়িতেই আইএলটিএস এর প্রস্তুতি কিভাবে নিবেন

আত্মউন্নয়নের জন্য নিজেকে সময় দিন

জার্মানিতে সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে পড়াশোনা

জার্মানির সেরা ১০ শহরের তালিকা

সফট স্কিল কি? সফট স্কিলের প্রয়োজনীয়তা

জার্মান ভাষা কোথায় শিখবেন? জার্মান ভাষার হাতেখড়ি 

জার্মানিতে পড়তে কি কি যোগ্যতা লাগে?

জার্মানির বার্লিনে কোন কোন বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে?

জার্মানিতে উচ্চশিক্ষা সম্পর্কিত যত প্রশ্ন (পার্ট ১)

জার্মানির সেরা ১০টি বিশ্ববিদ্যালয়ের তালিকা

Subscribe For Latest Updates!

Get higher-study abroad, visa & migration-related latest updates from eGal!

Invalid email address
We promise not to spam you. You can unsubscribe at any time.
Avatar

Nazmul Hasan

Nazmul Hasan Department of Civil Engineering Dhaka International University

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *