বেলজিয়ামে উচ্চশিক্ষা : গুরুত্বপূর্ণ যে বিষয়াদি জানার বিকল্প নেই!

পশ্চিম ইউরোপের একটি দেশ হচ্ছে বেলজিয়াম। মধ্যযুগীয় শহর, রেনেসাঁর স্থাপত্য, ইউরোপীয় ইউনিয়ন এবং ন্যাটো এর সদর দফতর হিসাবে পরিচিত এই বেলজিয়াম। দেশটির উত্তরে ডাচ-ভাষী ফ্ল্যাণ্ডার্স, দক্ষিণে ফরাসী ভাষী ওয়ালোনিয়া এবং পূর্বে একটি জার্মান-ভাষী সম্প্রদায় রয়েছে। ৩০ হাজার ৫৩৮ বর্গকিলোমিটারের এই দেশটির অন্যতম প্রধান ৩টা ভাষা হলো ফ্রেঞ্চ, ডাচ এবং জার্মান।

বেলজিয়ামের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে সাধারণত পড়াশোনা করানো হয় ডাচ ভাষায়। তবে অল্প কিছু শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ইংরেজি ভাষায়ও পড়াশোনা করা যায়। তাই আপনি যদি বেলজিয়ামে উচ্চশিক্ষার জন্য আগ্রহী হয়ে থাকেন তাহলে আপনাকে ডাচ ভাষার ওপর ভালো দক্ষতা অর্জন করতে হবে । শিক্ষার মানের দিক থেকে বেলজিয়াম বেশ উন্নত এবং বেলজিয়ামে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ডিগ্রি আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত।

বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের উচ্চশিক্ষার জন্য পছন্দের জায়গা হতে পারে শেঞ্জেনভুক্ত ছোট এই দেশটি। বেলজিয়ামে এখন অসংখ্য শিক্ষার্থী পাড়ি জমান, তার একমাত্র কারণ হচ্ছে বেলজিয়ামে তুলনামূলক কম খরচে শিক্ষা গ্রহণ করা এবং অসংখ্য কাজের সুযোগ আছে। নিম্নোক্ত বিষয়গুলো পড়ার জন্য বেশ ভালো বেলজিয়ামের বিশ্ববিদ্যালয়গুলো।

  • প্রকৌশল।
  • পদার্থ।
  • অর্থনীতি।
  • ব্যবসায় শিক্ষা।
  • পলিটিক্যাল সায়েন্স।
  • আইটি।
  • স্বাস্থ্য।
  • কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড আইটি।

ইউরোপের অন্যান্য দেশের মতো বেলজিয়ামের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতেও ব্যাচেলর ডিগ্রি, মাস্টার্স ডিগ্রি ও পিএইচডি পর্যায়ে বিভিন্ন কোর্স আছে। তার মধ্য থেকে এই সকল কোর্সগুলো আপনি নির্বাচন করতে পারেন।

  • লাতিন।
  • গ্রিক।
  • জার্মান।
  • মডার্ন হিস্ট্রি।
  • কমিউনিকেশন স্টাডিজ।
  • আর্কিওলজি।
  • নরডিক স্টাডিজ।
  • ইকোনমিকস।
  • বিজনেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন।
  • ফার্মাসি।
  • পলিটিক্যাল সায়েন্স।
  • সোশিওলজি।
  • জিওগ্রাফি।
  • বায়োলজি।
  • কেমিস্ট্রি।
  • জেনেটিকস।
  • প্যাথলজি।
  • সার্জারি।
  • ডেন্টিস্ট্রি।
  • রেডিওলজি।
  • আর্কিটেকচার।
  • আরবান প্ল্যানিং।
  • কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং।
  • মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং।
  • ইলেকট্রিক্যাল পাওয়ার ইঞ্জিনিয়ারিং।
  • টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং।
  • সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং।
  • ভেটেরিনারি।
  • কম্পিউটার সায়েন্স।
  • ইলেকট্রনিকস।
  • ম্যাথমেটিকস।
  • মেডিসিন অ্যান্ড হেলথ সায়েন্স।
  • মাইক্রোবায়োলজি অ্যান্ড ইমিউনোলজি।
  • টেলিকমিউনিকেশন অ্যান্ড ইনফরমেশন।
  • হর্টিকালচার ম্যানেজমেন্ট স্ট্যাটিসটিকস।

বেলজিয়ামের শীর্ষ বিশ্ববিদ্যালয় গুলো হচ্ছে-

  • KU Leuven
  • Ghent University
  • Hasselt University
  • University of Antwerp
  • University of Mons
  • De Liège Université
  • Université libre de Bruxelles
  • Université catholique de Louvain
  • Vrije Universiteit Brussel (VUB)
  • Hasselt University

বেলজিয়ান বিশ্ববিদ্যালয়ে আবেদন প্রক্রিয়া-

সাধারণত বেলজিয়ামে বিশ্ববিদ্যালয়ে বছরে একবারই আবেদন করা যায়। বিশ্ববিদ্যালয়ভেদে শিক্ষার্থীদের সেপ্টেম্বর থেকে মার্চ মাস পর্যন্ত আবেদন করার সুযোগ থাকে। আপনার প্রোগ্রাম নির্বাচনের জন্য এই লিঙ্কে দেখুন (Study Programmes) এখান থেকে পড়াশোনার মাধ্যম, ফিল্ড অফ স্টাডি, প্রোগ্রাম নাম, প্রোগ্রাম টাইপ এবং ইন্সিটিউট দেখতে পারবেন।

বেলজিয়ামে পড়াশোনার জন্য নির্দিষ্ট বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির তথ্য ও প্রসপেক্টাসের জন্য আবেদন করলে তারা আপনাকে বিস্তারিত প্রসেসিং এবং প্ল্যান ইমেইলে পাঠিয়ে দেবে। বিশ্ববিদ্যালয়ে আবেদন করতে আপনার যা প্রয়োজন সেগুলো হচ্ছে-

  • ব্যাচেলর ট্রান্সক্রিপ্ট ও সার্টিফিকেট (মাস্টার্স এ অ্যাপ্লাই করতে)।
  • মাস্টার্স ট্রান্সক্রিপ্ট ও সার্টিফিকেট (পিএইচডি এর জন্য)।
  • IELTS স্কোর 6.5 থেকে 7 (ইংরেজি মাধ্যমের জন্য)।
  • এসএসসি ট্রান্সক্রিপ্ট ও সার্টিফিকেট।
  • এইচএসসি ট্রান্সক্রিপ্ট ও সার্টিফিকেট।
  • মোটিভেশনাল লেটার
  • সিভি/ রিজিউমি।
  • রেফারেন্স লেটার (২-৩টা)।

শিক্ষা সনদ নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানের রেজিস্ট্রার কর্তৃক সত্যায়িত করতে হবে তারপর শিক্ষা বোর্ড, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এবং বেলজিয়াম কনস্যুলেট থেকে সত্যায়িত করাতে হবে। এবং সব পেপার বিশ্ববিদ্যালয়ের ঠিকানা বরাবর পাঠাতে হবে।

বেলজিয়ামে স্টুডেন্ট ভিসার জন্য যেভাবে আবেদন করবেন-

ভিসা আবেদন করতে হবে ভারতে বেলজিয়াম দূতাবাস থেকে কারণ বেলজিয়ামের দূতাবাস বাংলাদেশে নেই। আপনার ভিসা অ্যাপ্লিকেশান এর জন্যে VFS Global যেতে হবে। তারপর পর্যায়ক্রমে কাজ শেষ করবেন। ভিসা পেতে আপনার যে কাগজগুলো তৈরি করতে হবে সেগুলো হচ্ছে-

  • কমপ্লিটেড ভিসা অ্যাপ্লিকেশান ফর্ম।
  • বিশ্ববিদ্যালয়ের অফার লেটার।
  • বৈধ পাসপোর্ট (কমপক্ষে ১ বছর এর বেশি মেয়াদ থাকতে হবে)
  • শিক্ষাগত কাগজপত্র।
  • ব্যাংক স্টেটমেন্ট (আর্থিক সামর্থ্যের প্রমাণপত্র)।
  • মেডিকেল সার্টিফিকেট
  • IELTS স্কোর সার্টিফিকেট
  • টিউশন ফি পেমেন্ট ডকুমেন্ট।
  • পুলিশ ক্লিয়ারেন্স সার্টিফিকেট (বয়স ২১ বছরের বেশি হলে)।

বেলজিয়াম বিশ্ববিদ্যালয়ে টিউশন ফি-

বেলজিয়ামে ইউনিভার্সিটি এবং কোর্স ভেদে প্রতি বছরে টিউশন ফি ৪১৭৫ ইউরো। তবে কিছু কিছু প্রোগ্রাম, কোর্স, ইউনিভার্সিটিতে টিউশন ফি বেশি হয়ে থাকে আবার খুব কমও হয়ে থাকে। সাম্প্রতিক অবস্থা জানতে সংশ্লিষ্ট ওয়েবসাইট থেকে দেখে হালনাগাদ তথ্য জেনে নিবেন সবসময়।

বেলজিয়ামে উচ্চশিক্ষার ওয়েব পোর্টাল-

লেখাটি ভাল লাগলে অবশ্যই শেয়ার করবেন এবং আপনার মূল্যবান মতামত জানাবেন।
কোনো প্রশ্ন থাকলে আমাদের ফেসবুক গ্রুপে পোস্ট করবেন।
সবসময় আপনার সহযোগিতায় আমরা পাশে আছি।
জি ধন্যবাদ।

লিখেছেন- রেদোয়ান আহমেদ

উচ্চশিক্ষা নিয়ে আমার আরও লেখা পড়ে দেখুন-

ফ্রান্সে উচ্চশিক্ষা

ফিনল্যান্ডে উচ্চশিক্ষা

জার্মান বিশ্ববিদ্যালয়ে আবেদন প্রক্রিয়া : শুরু থেকে শেষ

Subscribe For Latest Updates!

Get higher-study abroad, visa & migration-related latest updates from eGal!

Invalid email address
We promise not to spam you. You can unsubscribe at any time.

One thought on “বেলজিয়ামে উচ্চশিক্ষা : গুরুত্বপূর্ণ যে বিষয়াদি জানার বিকল্প নেই!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *